1. dailygonochetona@gmail.com : admi2017 :
  2. aminooranzan@gmail.com : Amin Anzan : Amin Anzan
  3. aminooranzan24@gmail.com : Amin Anzan : Amin Anzan
  4. chanmiahsw@gmail.com : chan miah : chan miah
  5. sbnews74@gmail.com : sajahan biswas : sajahan biswas
রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫০ পূর্বাহ্ন

আরিচা ও পাটুরিয়ায় ফেরি পারাপারে সংকট এখনো কাটেনি

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ২৩ আগস্ট, ২০২১, ৯.৪৮ পিএম
  • ৫৭ বার পঠিত

 

শাহজাহান বিশ্বাসঃ ২৩ আগস্ট ২০২১
আরিচা ও পাটুরিয়ায় ফেরি পারাপারে সংকট এখনো কাটেনি। ফলে দুই ঘাটে নদী পারের অপেক্ষায় রয়েছে শত শত ট্রাক। ভোগান্তিতে পড়ছে আটকে পড়া এসব ট্রাকের শ্রমিকরা। গত এক সপ্তাহ ধরে আরিচা ও পাটুরিয়া ফেরি পারাপারে এ সংকটের সৃষ্টি হলেও রহস্যজনক কারণে কর্তৃপক্ষ এ সমস্যা সমাধনের কোন উদ্যোগ নিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন যানবাহন শ্রমিকরা। এতে যাত্রী ও যানবাহন চালকদের ভোগান্তি দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে বলে জানান ট্রাক শ্রমিকরা।
জানা গেছে, নদীতে পানি বৃদ্ধি ও প্রবল স্রোত, ফেরি স্বল্পতা এবং যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পাওয়ায় আরিচা-কাজিরহাট এবং পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল ব্যহত হওয়ায় যানবাহন পারাপারে চরম সংকট সৃষ্টি হয়েছে। গত এক সপ্তাহ ধরে চলছে এ সংকট। দেশের উত্তর-দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের লোকজনের রাজধানী ঢাকার সাথে সহজ যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে আরিচা ও পাটুরিয়া ফেরি ঘাট। কিন্তুু কর্তৃপক্ষের গাফলতির কারণে ফেরি পারাপারের এ সংকট দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে এসব জেলার যাত্রীদের।


সোমবার ( ২৩ আগস্ট) সকালে আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, পাটুরিয়াতে যাত্রীবাহী যানবাহন আসামাত্র পার হলেও টার্মিনালে শত শত পন্যবাহী ট্রাক ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। গত শনিবার পাটুরিয়া ঘাটে আসা ট্রাক সোমবার সকালেও ফেরি পার হতে পারেনি। পাটুরিয়া ঘাটে সকালের দিকে ঘাট এলাকা থেকে মহাসড়কের ১কিলোমিটার ট্রাকের সারি এবং ৫০টির মতো যাত্রীবাহী বাস ফেরি পারের অপেক্ষায় রয়েছে। এদিকে আরিচা ঘাটে ফেরি স্বল্পতার কারণে টার্মিনাল এলাকায় পন্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা গেছে, আরিচার যমুনা পয়েন্টের পানি বিপদ সিমার ৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় যমুনা নদীর পানি ৭ সেন্টিমিটা বৃদ্ধি পেয়েছে।
বিআইডব্লিউটিসি’র মেরিন অফিসার মো. আব্দুস ছাত্তার বলেন, পদ্মা-যমুনায় অস্বাভাবিক মাত্রায় পানি বৃদ্ধির ফলে নদীতে প্রবোল স্রোতের কারণে ফেরি চলাচলে সময় বেশী লাগছে। বর্তমানে একটি ফেরি স্রোতের প্রতিকুলে পাটুরিয়া থেকে ছেড়ে দৌলতদিয়া যেতে সময় লাগছে ৫০মিনিট। অন্যান্য সময়ে যেখানে লাগতো ৩০মিনিট। আগের চেয়ে ২০ মিনিট সময় বেশী লাগছে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ১৮টি ফেরি মধ্যে ১টি ফেরি সাময়িক মেরামতে রয়েছে এবং ১৭টি ফেরি চলাচল করছে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে ফেরির এক মাস্টার বলেন, নদীতে প্রবোল স্রোতের কারণে দৌলতদিয়া ঘাটে গিয়ে ফেরি পন্টুনে নোঙর করা কঠিন হয়ে পড়েছে। ফেরিগুলো ঘাটে ভিড়ার পর স্রোতে অন্যদিকে নিয়ে যায়। এতে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় ফেরি নোঙর করে যানবাহন লোড-আনলোড করতে সময় বেশী লাগছে। এছাড়া ফেরিগুলো অনেক দিনের পুরানো এবং লক্কর-ঝক্কর মার্কা হওয়ায় প্রবল স্রোতের বিপরীতে চলতে অনেক সুবিধা হচ্ছে। এতে ফেরিগুলো নির্দিষ্ট পথে চালাতে সমস্যা হচ্ছে বলে জানান ফেরি চালকরা ( মাস্টাররা)।
ট্রাক চালক হেমায়েত হোসেন বলেন, আমি ফেরি পার হবার জন্য গত শুক্রবার দিবাগত রাতে পাটুরিয়া ঘাটে আসি। কিন্তুু আজ সোমবার (২৩ আগস্ট) সকালেও ফেরি পার হতে পারিনি। নদীতে স্রোতসহ নানা ধরনের সকটের কারণে এ নৌরুটে ফেরি চলাচলে সমস্যা হচ্ছে। যে কারণে আমাদেরকে ফেরি পারের জন্য ঘাটে এসে দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকলে আমাদের অবস্থা কাহিল হয়ে পড়বে বলে তিনি জানান।
অপর ট্রাক চালক মো. আলমাস আলী বলেন, প্রায় এক সপ্তাহের বেশী সময় ধরে ঘাটের এরকম খারাপ অবস্থা। কিন্তুু এ সমস্যা সমাধানে কর্তৃপক্ষ অদ্যবদিও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বলে তিনি জানান।

এদিকে আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে মাত্র তিনটি ফেরি দিয়ে চালু রাখা হয়েছে ফেরি সার্ভিস। মাঝে মধ্যে ২/১ টি বিকল হয়ে পড়লে এ নৌরুটে ফেরি পারাপারের অবস্থা অরো খারাপ হয়ে পড়ে। ঘাট চালু হবার পর থেকে দিন দিন ফেরির সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। কিন্তুু ফেরি বাড়ানো হয়নি। এ স্বল্প সংখ্যক ফেরি দিয়ে যাত্রী এবং যানবাহন পারাপারে হিমশিম খাচ্ছে ফেরি কর্তৃপক্ষ। ফেরিগুলো আরিচা থেকে লোড করে কাজিরহাট চলে গেলে এপার (আরিচা) ফেরি শূণ্য হয়ে পড়ে। ফলে এপার (আরিচাতে) ফেরি পার হতে আসা গাড়িগুলোকে ৪ থেকে ৫ ঘন্টা করে অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এতে প্রতি নিয়তই ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে যাত্রী এবং যানবাহন চালকদেরকে।
এব্যাপারে বিআইডব্লিউটিসি’র ডিজিএম জিল্লুর রহমান বলনে, নদীতে পানি বৃদ্ধি এবং প্রবল স্রোত এটা প্রকৃতিগত সমস্যা। এটা নিয়ন্ত্রণে আমাদের কোন হাত নাই। এছাড়া স্রোতের কারণে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় ওই রুটের গাড়িগুলো পাটুরিয়া ঘাট ব্যবহার করায় এ রুটে গাড়ির চাপও কিছুটা বেড়েছে। ফলে ফেরি পারাপারে এ সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। এখানে আমাদের কোন গাফলতি নেই। তবে নদীতে স্রোত একটু কমে গেলে ফেরি পারাপারে এ সংকট থাকবে না বলে তিনি জানান।

শাহজাহান/গণচেতনা

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazargonoche21

© All rights reserved  2020 Gonochetona.com