1. dailygonochetona@gmail.com : admi2017 :
  2. aminooranzan@gmail.com : Amin Anzan : Amin Anzan
  3. aminooranzan24@gmail.com : Amin Anzan : Amin Anzan
  4. chanmiahsw@gmail.com : chan miah : chan miah
  5. sbnews74@gmail.com : sajahan biswas : sajahan biswas
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০২:৩৮ অপরাহ্ন

আরিচা ও পাটুরিয়া ঘাট হয়ে স্বাভাবিক সময়ের মতো কর্মস্থলে ফিরছেন যাত্রীরা

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ৩০ জুলাই, ২০২১, ৯.২৮ পিএম
  • ১০৩ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ ৩০ জুলাই ২০২১
আগামী ১ লা আগস্ট শিল্পকারখানা খুলার আশংকায় ঈদ শেষে লকডাউন উপেক্ষা করে স্বাভাবিক সময়ের মতো ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায় কমস্থলে ফিরছেন যাত্রীরা। এতে করোনা সংক্রমোন বৃদ্ধির আশংকা করছেন স্থানীয়রা।
শুক্রবার (৩০ জুলাই ) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কাজিরহাট -আরিচা এবং দৌলতদিয়া- পাটুরিয়া ঘাটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। গণপরিবহণ বন্ধ থাকায় পিকআপ-প্রাইভেট-মোটরসাইকেল-ভ্যানে ঢাকায় ফিরছেন এসব যাত্রীরা। ঢাকা-আরিচা মহাসড়কেও ছিল ঢাকামুখী যাত্রী, ব্যক্তিগত ও ছোটগাড়ির চাপ। ঈদের ছুটিতে যারা গ্রামে গিয়েছিলেন তারা এখন কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছেন।
কিন্তু, দেশে চলমান কঠোর লকডাউনে গণপরিবহন বন্ধ থাকায় অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে খোলা পিকআপ ভ্যান, প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস, মোটর সাইকেল, রিকশা ও ভ্যানে ফিরতে হচ্ছে তাদের। এতে পথে পথে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে এস যাত্রীদের।
আরিচা ঘাট থেকে নবীনগর পর্যন্ত মটর সাইকেলে জন প্রতি নেওয়া হচ্ছে ৫শ টাকা আর সাভার হেমায়েতপুর পর্যন্ত নেওয়া হচ্ছে ১হাজার থেকে ১২শ টাকা। প্রাইভেটকারে ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা করে নেওয়া হচ্ছে। পাটুরিয়া ঘাটে একই চিত্র দেখা গেছে।

শুক্রবার বিকেল মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড এলাকার পানি উন্নয়ন বোর্ডের সামনের মহাসড়কে অন্তত কয়েকশ নারী-পুরুষ-শিশুকে গাড়ির অপেক্ষায় থাকতে দেখা গেছে। একটি গাড়ি এলেই তাতে উঠতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন মানুষ। মানিকগঞ্জ থেকে নবীনগর-সাভারগামী পিকআপভ্যানে ২০ থেকে ২২ জন করে যাত্রী নেওয়া হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে ভাড়া নেওয়া হচ্ছে জনপ্রতি ৪০০টাকা।
মোটরসাইকেলে নেওয়া হচ্ছে দু’জন যাত্রী এবং জনপ্রতি ভাড়া ৩০০ থেকে ৪০০। ভ্যানে যাত্রী নেওয়া হচ্ছে ১২ জন, ভাড়া জনপ্রতি ২৫০টাকা। এভাবে সবধরনের গাড়িতে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে ফিরতে হচ্ছে যাত্রীদের।
পাবনার সামছুল হক বলেন, ‘আমি একজন পোশাক শ্রমিক। আমি আশুলিয়া এলাকার একটি কারখানায় কাজ করি। ঈদের ছুটিতে গণপরিবহন চালু ছিল, স্ত্রীকে নিয়ে খুব সহজেই বাড়িতে আইছিলাম। ঈদের পরে তো সরকার কঠোর লকডাউন থাকায় বাস চলতেছে না। এখন যামু কেমনে। কারখানায় না গেলে চাকরি থাকবে না। আমি, আমার স্ত্রী আর শালিকে নিয়া আশুলিয়ায় যাইতেছি। বাড়ি থেকে বিভিন্ন গাড়িতে এবং ফেরিতে আরিচা ঘাট পর্যন্ত আসতে আমাদের খরচ হয়েছে ১৫শ টাকা। এখান থেকে প্রাইভেটকার নবীনগর পর্যন্ত যাইতে ভাড়া চাইতাছে প্রতিজন ৬শ’ টাকা। আর খোলা পিকআপ ভ্যানে চাইতাছে ৪শ’ করে। তিনি আরও বলেন, এখান থেকে আশুলিয়া যাইতে আরও যে কত লাগবো, আল্লাহই জানে। অথচ বাস চালু থাকলে আমার বাড়ি থেকে আশুলিয়া পর্যন্ত যাইতে তিনজনের মোট খরচ হতো ১হাজার টাকা। অথচ, এখন ভাড়া লাগতাছে তিন হাজার টাকা ওপরে। সরকার ঈদের আগে যেমন লকডাউন শিথিল করছিল, ঈদের পরে যদি সাতদিন লকডাউন শিথিল করতো- তাইলে আমাগো এই ভোগান্তি হয়তো না।

পাবনার বেড়ার হোসেন আলী বলেন, ‘আমি গাজিপুরে একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করি। ম্যানেজার যাওয়ার জন্য মোবাইল করেছে না গেলে চাকরি থাকবে না। তাই কষ্ট হলেও লকডাউনের মধ্যে রওয়ানা দিয়েছি। গনপরিবহণ বন্ধ থাকায় আরিচা ঘাটে এসে বিপাকে পড়েছি। এখান থেকে নবীনগরের ভাড়া চাচ্ছে ৭শ’ টাকা। এমনিতেই ঈদে বাড়ি গিয়ে টাকা পয়সা শেষ। এখন এতো টাকা ভাড়া দিয়ে কিভাবে কর্মস্থলে যাবো সে চিন্তাতেই আছি।
বিআইডব্লিউটিসি’র আরিচা আঞ্চলিক কার্যালয়ের ডিজিএম জিল্লুর রহমান বলেন, জরুরী পণ্যবাহী ট্রাকা পারাপার করার জন্য সীমিত আকারে ফেরি সার্ভিস চালু রাখার নির্দেশনা রয়েছে। এর মধ্যে যাত্রী উঠে গেলে আমাদের কি করার আছে। মানবিক কারণে জরুরী পণ্যবাহী ট্রাকের সাথে এসব যাত্রীরা পারাপার হচ্ছে।
শাহজাহান বিশ্বাস/গণচেতনা

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazargonoche21

© All rights reserved  2020 Gonochetona.com